পেলের বন্ধু কিশোরগঞ্জের কিংবদন্তি ফুটবলার চুনি গোস্বামী আর নেই

ভারতের সর্বকালের সেরা ক্রীড়াবিদ’, ভারত জাতীয় ফুটবল দলের সাবেক অধিনায়ক চুনি গোস্বামী আর নেই। তিনি কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার যশোদল ইউনিয়নের গোঁসাই পাড়া গ্রামের অধিবাসী ছিলেন। বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল ) দক্ষিণ কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তাঁর ছেলে সুদীপ্ত গোস্বামী যুগান্তরকে এ খবর নিশ্চিত করেছেন। ভারতবর্ষের এ কিংবদন্তি ফুটবলারের সঙ্গে ফুটবলের রাজা পেলের বন্ধুত্ব ছিল। এছাড়াও আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলের ফুটবলারদের দারুণ সখ্যতা ছিল তার।

পারিবারিক সূত্র জানায়, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমিয়েছেন এই প্রবাদপ্রতীম ফুটবলার। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮২ বছর। তাঁর মৃত্যু সংবাদে শোকের ছায়া ক্রীড়া জগৎসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার লোকজনের মধ্যে। ১৯৬২ সালের এশিয়ান গেমসে সোনাজয়ী ভারতীয় দলের অধিনায়ক ছিলেন তিনি। চুনী গোস্বামীর ফুটবলজীবন ছিল অজস্র কীর্তিতে উজ্জ্বল। তবে তার মধ্যে এশিয়ান গেমসে সোনা জয়ই সেরা হিরণ্ময় মুকুট।

ভারতবর্ষের সর্বকালের সেরা ফুটবল অধিনায়কদের একজন চুনি গোস্বামী। তাঁর নেতৃত্বে এশিয়ান গেমসে স্বর্ণ জয় ছাড়াও ১৯৬৪ সালে এশিয়ান কাপে রানার্স-আপ হয়েছিল ভারত। ১৯৫৭ সালে আন্তর্জাতিক ফুটবলে প্রথমবার পা রেখেছিলেন তিনি । ১৯৬৪ সালে মাত্র ২৭ বছর বয়সে তাঁকে শেষবার দেখা গিয়েছিল জাতীয় দলের হয়ে। এই সময়ের মধ্যে এশিয়ান গেমসে চ্যাম্পিয়ন হওয়া ছাড়াও চুনী গোস্বামীর নেতৃত্বে ১৯৬৪ সালে এশিয়ান কাপে রানার-আপ হয়েছিল ভারত। ছয় মাস পরে মারডেকা ফুটবলের ফাইনালেও উঠেছিল দল। কিন্তু, ফাইনালে জয় আসেনি।

ক্লাব ফুটবলে তিনি শুধু মোহনবাগানের হয়েই খেলেছেন। দীর্ঘদিন ধরেই বয়সজনিত কারণে ভুগছিলেন তিনি। গত কয়েক মাস ধরে সুগার, প্রসট্রেট ও স্নায়ুর সমস্যায় ভুগছিলেন। আজ বৃহস্পতিবার সকালে এ অবস্থায় তাঁকে যোধপুর পার্কের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই আজ বিকেলে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে তাঁর মৃত্যু হয়। ক্রিকেটেও ছিলেন তিনি অনবদ্য নাম-ডাক ও যশ সব ফুটবলে ঘিরে থাকলেও চুনী গোস্বামী কেবল ফুটবলই খেলেননি।

বেঙ্গলের হয়ে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট রঞ্জি ট্রফিতেও খেলেছিলেন তিনি। ক্রিকেটার হিসেবে তিনি ১৯৬২ থেকে ১৯৭৩ সালের মধ্যে বেঙ্গলের হয়ে ৪৬টি প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলেছেন। তাঁর নেতৃত্বে রঞ্জি ফাইনালে উঠেছিল বাংলা। ব্র্যাবোর্ন স্টেডিয়ামে ফাইনালে তৎকালীন বোম্বের কাছে হেরেছিল বাংলা। চুনির মূল নাম সুবিমল গোস্বামী। তবে পরিচিত মহলে তিনি চুনি গোস্বামী নামে পরিচিত ছিলেন। ১৯৩৮ সালের ১৫ জানুয়ারি অবিভক্ত বাংলার ময়মনসিংহ জেলার কিশোরগঞ্জ মহকুমার সদরের যশোদল গোঁসাই পাড়া গ্রামের সম্ভ্রান্ত গোস্বামী পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন তিনি।

About admin

Check Also

খেলা শুরু হলে মানুষের করোনা ভীতি কেটে যাবে: পিটারসেন

মহামারী আকার ধারণ করা করোনাভাইরাসের সংক্রমণে প্রতিদিনই অসংখ্য মানুষের মৃত্যুর সংবাদ পাওয়া যাচ্ছে। এমন সংবাদে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *